নৌকাবিহারের পর ঘরোয়া আলোচনায় মোদী ও শি আপডেট: 27-04-2018   
ক্যালেন্ডারে ২৭ এপ্রিল, শুক্রবার দিনটি ইতিহাসের পাতায় চলে গেল। এশিয়ায় দু’-দু’টি ঘটনার দৌলতে। ভারতে যখন ভোরের আলো ফোটেনি, তখন দীর্ঘ ১১ বছর পর সোলে মুখোমুখি বৈঠকে বসলেন উত্তর ও দক্ষিণ, দুই কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট। আর ভারতে যখন সকালের রোদ একটু কড়া হয়েছে, তখন চিনে পৌঁছে গেলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, দু’দিনের সফরে। ডোকলাম ঘিরে ৭২ দিনের উত্তেজনার পর এই প্রথম। ৪০ মিনিটের ঘরোয়া বৈঠকে বসলেন চিনা প্রেসিডেন্ট শি চিনফিংয়ের সঙ্গে। সেই বৈঠকের আগে দু’দেশের সম্পর্কের বরফ গলাতে চিনফিংয়ের সঙ্গে মোদী ঘুরে দেখলেন মধ্য চিনে উহানের ঐতিহ্যবাহী মিউজিয়াম, গেলেন সেখানকার একটি হ্রদে। আর সেই হ্রদে গিয়ে নৌকাবিহার করলেন দু’জনে। ঘটনাচক্রে, এই উহান ছিল মাও জে দঙের অত্যন্ত প্রিয় শহর। সফরের শেষ দিনে, আগামী কাল শনিবার বেজিংয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে বৈঠকে বসার কথা মোদী ও চিনফিংয়ের। তাঁদের সেই মুখোমুখি বৈঠকে আর থাকবেন দুই দোভাষী। সেই বৈঠকের কোনও অ্যাজেন্ডা নেই বলে বিদেশ মন্ত্রকের তরফে আগেই জানানো হয়েছে। দিল্লি থেকে এ দিন রওনা হওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, ‘‘দ্বিপাক্ষিক থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক স্তরে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আমি কথা বলব চিনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে। গত কয়েক মাসে ভারত-চিন সম্পর্কের হাল কতটা ফিরল, তাও খতিয়ে দেখা হবে। আলোচনা করব সেই সম্পর্কের ভবিষ্যৎ নিয়েও।’’ উহানে পৌঁছে এ দিন ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী থাকার সময়েও এক বার এসেছিলেন চিনের এই এলাকায়। তাঁর সে কথা মনে পড়ে যাচ্ছে।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ