নাড়িছেঁড়া ধনের জানাজা এখনো জানেনা মা আপডেট: 19-03-2018   
প্রিয়জনের শেষযাত্রা, তবু জানেনা আর এক প্রিয়জন ভাগ্য এত নিষ্ঠুর কেনো এমন ঘটনায় চোখের পানিও যেনো বাধ মানে না। রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে হাহাকারের বাতাস বইছে। প্রিয়জনের মিলনমেলা কিন্তু ছুঁয়েও ছোঁয়া হচ্ছে না কোনো প্রিয়জনকে। তিন বছরের প্রিয়ন্ময়ীর সাধ হয়েছিল আকাশে ওড়বার। ঢাকা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান উড়েছিলো সোমবার দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে। বাবা-মায়ের সঙ্গে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের বিএস ২১১ করে কাঠমান্ডু পাড়ি দিয়েছিল প্রিয়ন্ময়ী। রওনা হওয়ার আগে বিমানবন্দরে বাবা-মায়ের সঙ্গে মহানন্দে বেশ কয়েকটা ছবি তুলেছিল প্রিয়ন্ময়ী। সেই সব ছবি এখন শুধুই বেদনার স্মৃতি। মেয়ের ইচ্ছাপূরণে বাবা এফ এইচ প্রিয়ক ঠিক করেছিলেন, আকাশপথেই নেপাল যাবেন। কিন্তু আকাশ ছুঁয়েও নেপাল দেখা হল না তার। মা বেঁচে গেলেও বাঁচেনি বাবা-মেয়ে। প্রিয়ন্ময়ীর মা অ্যানি গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন। তারপর থেকেই তাকে জানানো হয়েছে স্বামী সন্তানকে চিকিৎসায় সিঙ্গাপুর নেয়া হয়েছে। বিধ্বস্ত বিমানটিতে মোট ৬৭ জন যাত্রী, দুইজন পাইলট ও দুইজন কেবিন ক্রু ছিলেন। এরমধ্যে মারা যান ৫১ জন। আর দীর্ঘ এ তালিকার ২৬ জনই বাংলাদেশি।